অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কী? কিভাবে করবেন বিস্তারিত|

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং হচ্ছে একটি অনলাইন বিক্রয় প্লাটফর্ম বা কৌশল যার মাধ্যমে কোম্পানির পণ্য বিক্রি করার মাধ্যমে কমিশন উপার্জন করতে পারবেন। অনুমোদিত কোন কোম্পানির নিজস্ব পণ্য নিযে তৈরি না করে অনলাইনে বিক্রির মাধ্যমে অর্থোপার্জন করার মাধ্যম হচ্ছে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং।

সহজ কথায়, যেকোন অনুমোদিত কোম্পানির কোনও পণ্য বা পরিষেবা কোনও ব্লগ, সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম বা ওয়েবসাইটে শেয়ার করে তা বিক্রি করা।আপনি ভিবিন্ন কোম্পনির সাথে যুক্ত হয়ে অ্যাফিলিয়েট লিঙ্কের মাধ্যমে কমিশন অর্জন করতে পারবেন। এর জন্য আপনাকে কোম্পানি’র অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রামের সাথে যুক্ত হতে হবে।

কীভাবে Affiliate মার্কেটিং করবেন?

Affiliate প্রোগ্রামে অংশ নিতে, আপনাকে এই চারটি সহজ পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে:

  • একটি ভালমানের Affiliate প্রোগ্রামের সন্ধান বা খোজ করুন এবং সেখানে যুক্ত হোন।
  • লিংক/Affiliate বিজ্ঞাপন শেয়ার করার জন্য কোন প্লাটফর্ম চয়েস করুন।
  • প্রতিটি শেয়ার প্লাটফর্ম এর জন্য লিংক তৈরী করুন
  • এই লিঙ্কগুলি আপনার ব্লগ, সামাজিক প্ল্যাটফর্ম বা ওয়েবসাইটে শেয়ার করুন।

যে কোনও সময় পণ্য বিক্রয়ের জন্য আপনার লিঙ্কগুলি ব্যবহার করুন, এখনআপনার লিংকে ক্লিক করে পণ্য ক্রয়ের মাধ্যমে কমিশন জমা শুরু হবে।কমিশন হারগুলি একেকসময় আলাদা আলাদাভাবে পরিবর্তিত হয়।

পনের চাহিদা এবং অফারের উপর নির্ভর কমিশনের পরিবর্তন। তবে আপনি যেকোন পণ্য বিক্রয়ের প্রায় 5% উপার্জন আপনি কমিশন পাবেন। তবে আপনি সাধারণত অফার বা ইভেন্ট প্রচার করার সময় 50% পর্যন্ত উপার্জন করতে পারবেন।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং হচ্ছে স্বাধীন একটা ব্যবসায় প্লাটফর্ম, যেখানে আপনার কোন রিস্ক নেই। আপনি বিনা অর্থের মাধ্যেমেই অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করতে পারবেন।তাছাড়া আপনাকে বাহিরে কোথাও যেতেও হবেনা। বর্তমানে জনপ্রিয় একটা কাজ হচ্ছে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করা।

আজকে এই পর্যন্তই নেক্সট কথা হবে, ভিবিন্ন মার্কেট প্লেস এবং অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রামে কিভাবে জয়েন করবেন সে বিষয়ে। আর হ্যা অবশ্যই আপ্নার মন্তব্য পোস্ট করবেন।

আরও পড়ুনঃ  ব্লগার VS ওয়ার্ডপ্রেস | আপনার জন্য কোনটা বেস্ট

ধন্যবাদ

Leave a Comment

x