Dark Mode
  • Sunday, 13 June 2021
ওয়েবসাইট কি? কিভাবে ওয়েবসাইট বানাবেন এবং ইনকাম করবেন- বিস্তারিত

ওয়েবসাইট কি? কিভাবে ওয়েবসাইট বানাবেন এবং ইনকাম করবেন- বিস্তারিত

আসসালামু আলাইকুম, প্রিয় ভিজিটর আশাকরি সবাই ভালো আছেন ,তো আজকে কথা বলব ওয়েব সাইটের সকল বিষয় নিয়ে। এর আগে আমরা কথা বলছি ওয়েবসাইট এর প্রকারভেদ নিয়ে।

একটি প্রফেশনাল ওয়েবসাইট তৈরি করতে কি কি লাগবে এবং কিভাবে একটি প্রফেশনাল ওয়েবসাইট তৈরি করা যায় সেই বিষয় নিয়ে আজকের আর্টিকেল লেখা শুরু করলাম।

একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে আপনার কি যা যা লাগবে
  • ডোমেইন
  • হোস্টিং
  • টেমপ্লেট বা থিম

উপরের তিনটি জিনিস হলে আপনি একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে ফেলতে পারবেন।

ওয়েবসাইট কি?

ওয়েবসাইট মানে হচ্ছে একটি কোম্পানির সকল তথ্য ছবি ভিডিও এবং সব ধরনের ডাটাবেজ একটি পেজের মাধ্যমে সংরক্ষণ করা এবং সকল কিছু ভিজিটরদের সামনে পেজ আকারে দেখানো বা শো করানো। যেমন আইসিটিমেলা.কম একটি ওয়েবসাইট এখানে সকল ধরনের ডাটাবেজ আর্টিকেল ছবি ভিডিও আপলোড করা আছে যে কেউ ইচ্ছে করলেই এখান থেকে বিভিন্ন আর্টিকেল দেখতে পারছে।

ডোমেইন কি?

ডোমেইন হচ্ছে একটি ওয়েবসাইটের নাম বা একটি নির্দিষ্ট আইপি অ্যাড্রেস। যেমন যেকোন ওয়েবসাইট তৈরি করার আগে আপনাকে একটা ডোমেইন কিনে নিতে হবে। আর ভিজিটর আপনার ডোমেইন এর নাম যেকোন ব্রাউজারে ইন্টার করলেই আপনার কাঙ্খিত ওয়েব পেজে চলে যাবে।

হোস্টিং কি

হোস্টিং বলতে আপনার ওয়েবসাইটের স্টুরেজ বা যেখানে আপনার ওয়েবসাইটের সকল ডাটাবেজে সংরক্ষিত থাকবে এবং আপনার সম্পূর্ণ ওয়েবসাইট হোস্টিং এর মাধ্যমে কন্ট্রোল করতে হবে। অতএব বলা যায় আপনার ওয়েবসাইটের সম্পূর্ণ কন্ট্রোল প্যানেলই হচ্ছে হোস্টিং।

থিম বা স্ক্রিপ্ট কি

থিম বা স্ক্রীপ্ট হচ্ছে আপনার ওয়েবসাইটের পুরোপুরি একটা ডিজাইন বা পরিপূর্ণ একটা ওয়েব ফ্রেমওয়ার্ক। আপনি যে কোন ওয়েবসাইটে গেলেই দেখতে পারবেন যে প্রতিটা ওয়েবসাইটে নির্দিষ্ট একটা ডিজাইন করা আছে। তো আপনাকে ওয়েবসাইট তৈরি করতে হলে নির্দিষ্ট আকারে ডিজাইন তৈরি করতে হবে। আপনি চাইলে ওয়ার্ডপ্রেসে বিভিন্ন থিম ইন্সটল করে আপনার ওয়েবসাইটটি ডিজাইন করে নিতে পারবেন এছাড়া blogger.com এ আপনি আপনার পছন্দ অনুযায়ী থিম ইন্সটল করে নিতে পারবেন । তাছাড়া অন্যান্য সিএমএস আছে আপনি সেগুলো ইউজ করতে পারেন। আপনি ডেভলপার দিয়ে বিভিন্ন ডিজাইন করতে পারবেন যেকোন ডিজাইন যা আপনার মন মত হবে।

কিভাবে হোস্টিং এর সাথে ডোমেইন এড বা কানেক্ট করবেন।

হোস্টিং এর সাথে ডোমেইন কানেক্ট করার ক্ষেত্রে আপনার প্রয়োজন হবে নেম সার্ভার, আপনি যে কোম্পানির হোস্টিং কিনুন না কেন, আপনাকে তারা নির্দিষ্ট নেইম সার্ভার দিবে আর সেই নেমসার্ভার টি আপনার ডোমেইন কন্ট্রোল প্যানেল থেকে অ্যাড করে নিতে হবে। এরপর 24 ঘন্টার মধ্যে আপনার ডোমেইন হোস্টিং এর সাথে এড হয়ে যাবে। হোস্টিং এর সাথে ডোমেইন যখন এড হয়ে যাবে তারপর আপনি যেকোন ব্রাউজারে আপনার সাইটের নাম ইন্টার করলেই পেয়ে যাবেন। এরপর আপনি আপনার পছন্দের থিম ইন্সটল করে নিবেন।

থিম বা টেম্পলেট কিভাবে ইন্সটল করবেন

আপনি যেহেতু হোস্টিং এর সাথে ডোমেইনটি কানেক্ট করে নিয়েছেন তো এখন কাজ হচ্ছে নির্দিষ্ট একটা ডিজাইন ইনস্টল করা। এর জন্য আপনার পছন্দ অনুযায়ী থিম ইনস্টল করে নেবেন। আপনি চাইলে প্রিমিয়াম থিম কিনে নিতে পারেন অথবা ফ্রী থিম ইনস্টল করতে পারেন । গুগোলে আপনি অসংখ্য থিম ফ্রিতে পাবেন সেখান থেকে আপনার পছন্দ অনুযায়ী ডাউনলোড করে আপনার ওয়েবসাইটে আপলোড করে দিলেই হবে।

ওয়েবসাইট এর ক্ষেত্রে ওয়ার্ডপ্রেস বা ব্লগার কোনটি বেটার

একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে আপনাকে অবশ্যই ওয়াডপ্রেস ব্লগার অথবা অন্যান্য অনেক সিএমএস আছে সেগুলোর সাহায্য নিতে হবে। প্রথম অবস্থায় আমি ব্লগার এবং ওয়াডপ্রেস এর ব্যাপারে কথা বলব

আপনি যদি নতুন হয়ে থাকেন, ওয়েবসাইট বিষয়ে জ্ঞান কম থাকে তাহলে আপনি শুধু একটা ডোমেইন কিনেই blogger.com এর মাধ্যমে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে ফেলতে পারবেন। ব্লগার হচ্ছে গুগলের একটি প্রোডাক্ট । ব্লগারে একটি ওয়েবসাইট রান করতে হলে আপনাকে কোন প্রকার হোস্টিং নিতে হবে না।

আপনি যখন প্রফেশনাল ওয়েবসাইট নিয়ে কাজ করবেন বা প্রফেশনাল একটি ওয়েবসাইট বানাবেন তখন আপনি আপনার ব্লগারে যে ওয়েবসাইটি তৈরি করা আছে সেটি কনভার্ট করে ওয়ার্ডপ্রেসে নিতে পারবেন।

ওয়ার্ডপ্রেস এমন একটি সিএমএস যেখানে আপনি জিরো নলেজ একটি প্রফেশনাল ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারবেন। এবং আপনি বিভিন্ন প্লাগিন এর মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইটকে সাজাতে পারবেন। তারপরও আমি মনে করি যদি আপনি নতুন হয়ে থাকেন তবে ব্লগার আপনার জন্য বেস্ট আর যদি আপনি প্রফেশনাল হয়ে থাকেন তবে অন্যান্য যে কোন সিএমএস ইউজ করতে পারেন।

ডোমেন হোষ্টিং কোথা থেকে নেবেন

ডোমেইন এবং হোস্টিং এর জন্য দেশী এবং বিদেশী অনেক প্রোভাইডার রয়েছে তো আপনি পেপাল বা ডুয়াল কারেন্সি কার্ড এর মাধ্যমে ইন্টারন্যাশনাল কোম্পানি থেকে ডোমেন হোস্টিং কিনতে পারেন আর যদি আপনার কাছে পেপাল বা ডুয়াল কারেন্সী কার্ড না থাকে তবে বাংলাদেশি অনেক সাইট আছে সেখান থেকে নিতে পারেন যদি। তবে আমি সাজেস্ট করব ইন্টারন্যাশনাল প্রোভাইডার থেকে ডোমেইন এবং হোস্টিং কিনুন যেমন: নেইমচিপ ,গোডাডে  ইত্যাদি।

ওয়েবসাইট থেকে ইনকাম এর সিস্টেম

বর্তমানে অনেকেই ওয়েবসাইট থেকে ইনকাম করে চলছে, সে অনুযায়ী আপনি একটি ওয়েবসাইট তৈরি করলে সেখান থেকে ইনকাম করতে পারবেন। এক্ষেত্রে আপনাকে অবশ্যই কিছু সময় দিতে হবে এবং নির্দিষ্ট নিস অনুযায়ী ওয়েবসাইট তৈরি করতে হবে।

একটি ওয়েসাইট থেকে ইনকাম করার জন্য অনেকগুলো অপশন আছে, আপনি আপনার পছন্দ অনুযায়ী ইনকামের যেকোনো একটা সেক্টর বেছে নিতে পারেন। যেমন :

  • এডস বা বিজ্ঞাপন
  • এফিলিয়েট মারকেটিং
  • স্পনসর ইত্যাদি

এডস বা বিজ্ঞাপন: আপনি আপনার ওয়েবসাইট এ বিভিন্ন কোম্পানির এড প্রদর্শন করে ইনকাম করতে পারেন সে ক্ষেত্রে গুগল এডসেন্স নাম্বার ওয়ানে। তাছাড়া গুগল এডসেন্স এর মত প্রচুর পরিমাণ কোম্পানি আছে যারা কিনা ওয়েবসাইটে বিজ্ঞাপন প্রোভাইড করে থাকে।

এফিলিয়েট: আপনার ওয়েবসাইট থেকে এফিলিয়েট  এর মাধ্যমে আপনি ইনকাম করতে পারেন। এফিলিয়েট হচ্ছে মূলত অনলাইন ভিত্তিক পণ্য সামগ্রী বিক্রি করা বা পন্যের বিজ্ঞাপন ওয়েবসাইটে প্রদর্শন করে সেখান থেকে ক্রেতা কে পণ্যের প্রতি আকর্ষিত করা। এর জন্য আপনাকে অ্যামাজন বা অন্যান্য আরো বড় বড় কোম্পানির এফিলিয়েট প্রোগ্রামে জয়েন করতে হবে।

স্পনসর: আপনার ওয়েবসাইট থেকে আপনি স্পন্সর এর মাধ্যমে ইনকাম করতে পারবেন। স্পন্সর থেকে ইনকাম করতে হলে আপনাকে এমন কোন কোম্পানির সাথে চুক্তিবদ্ধ হতে হবে যারা কিনা তাদের পণ্য ও সেবা স্পন্সর করে থাকে। অর্থাৎ আপনি চাইলে এমন অনেক কোম্পানি পেয়ে যাবেন সেখানে আপনি তাদের সাথে চুক্তিবদ্ধ হয়ে তাদের কোম্পানির বিভিন্ন সেবা বা পণ্যের উপর স্পন্সর বিজ্ঞাপন দিয়ে ভালো পরিমাণ ইনকাম করতে পারবেন।

তো এই ছিল আজকের ওয়েবসাইট বিষয়ক আর্টিকেল আশা করি আপনারা সম্পূর্ণভাবে বুঝতে পারছেন এরপরেও যদি কোন সমস্যা হয়ে থাকে বুঝতে ,তবে আমাদের কমেন্ট করে জানাবেন আমরা অবশ্যই চেষ্টা করব সাহায্য করার

ধন্যবাদ।

comment / Reply From

archive

please_select_a_date