Dark Mode
  • Sunday, 13 June 2021
এসইও (SEO) কি এবং কিভাবে নতুন ওয়েবসাইটের জন্যে এসইও করতে হয় ?

এসইও (SEO) কি এবং কিভাবে নতুন ওয়েবসাইটের জন্যে এসইও করতে হয় ?

আপনার ব্লগ বা ওয়েবসাইটের জন্য ভিজিটর বাড়ানোর জন্য দুটি মূল বিবেচ্য বিষয় রয়েছে: প্রথমত, কীভাবে মানসম্পন্ন আর্টিকেল তৈরি করা যায় যা ইউজারদের জন্য প্রযোজ্য , বিশেষ করে এমন সব আর্টিকেল লিখবেন যা মানুষের জন্য সবসময় প্রয়োজন হয়।;এবং দ্বিতীয়ত, কীভাবে ইউজারদের কাছে আপনার ব্লগের আর্টিকেল গুলো প্রকাশ করা যায় সেই দিকে গুরুত্ব দেওয়া। যাতে বেশিরভাগ ওয়েব ট্র্যাফিক বা ভিজিটর সার্চ ইঞ্জিন থেকে আসে। এরজন্য প্রধান ও সেরা উপায় হচ্ছে, সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন (SEO) । আপনি এমনভাবে আর্টিকেল তৈরি করবেন যা নির্বিঘ্নে এসইও ফ্রেন্ডলি এবং ভিজিটরদের আকর্ষণ করে।

হ্যাঁ, অবশ্যই আর্টিকেলগুলো আপনার নিজের লিখিত, ইউনিক এবং আপনার ভিজিটরদের জন্য মূল্যবান তথ্যে পূর্ণ হয় সে দিকে খেয়াল রাখবেন।
একটি সুন্দর এসইও র‌্যাঙ্কিং আর্টিকেল আপনার ওয়েবসাইটকে অনেক থেকে দূরে নিয়ে যেতে পারে, যা আপনার কল্পনার বাহিরে। হিউজ পরিমান নতুন পাঠকের কাছে আপনার পোষ্ট গুলো পৌছে যাবে,এবং ব্লগের নতুন প্রান এনে দিতে পারে।

কোন আর্টিকেলগুলো ভিজিটর আনতে পারে?

সত্যি বলতে কাওকে আর্টিকেল লেখা শেখানো যায় না,তবে আপনি যদি নিয়মিত নতুন তথ্য নিয়ে ভাল কিছু পোস্ট করতে পারেন তবে আস্তে আস্তে নিজের মাঝেও লেখালেখির একটা অভ্যাস চলে আসবে। আর ব্লগার হিসাবে, আপনি শেষ পর্যন্ত একজন গল্পকার, বিভিন্ন ব্র্যান্ডের মাধ্যমে আপনার ব্র্যান্ডের কাহিনী পৌঁছে দেওয়া, খেলাধুলা ইত্যাদি এসব নিয়েই আপ্নার পরিচিতি বেড়ে যাবে। এখন আপনাকে যা করতে হবে তা হলো লেখালেখি করার দক্ষতা বা চর্চা করা।

আপনার ভিজিটরদের জানুন:

আপনার ব্লগটি আপনার ডায়েরি নয়, এটি কোনও ইন্টারফাইস মেমোও নয়। সুতরাং আপনি যা নিয়ে লেখালেখি করবেন তার জন্য আপনি উপযুক্ত ভাষা বা নিস নিয়ে কাজ করবেন তা নিশ্চিত করুন। লেখার অনুচ্ছেদ সংক্ষিপ্ত এবং আলাদা আলাদা পয়েন্টে রাখুন, এবং যে বিষয় নিয়ে লিখবেন সেটার ধারণা বুঝতে যেন সহজ হয়। প্রতিটি আলাদা বিষয়ের জন্য আলাদাভাবে ক্যাটাগরি তৈরী করুন। লেখালেখির আলাদা কোন সোর্স থাকলে সেটার লিঙ্ক পোস্টে এড করে দিবেন। যাতে আপনার লেখার সুস্পষ্ট ধারণা পেতে ভিজিটরদের সহায়তা করে।
অবশেষে, আপনি অপ্রয়োজনীয় বলে মনে করেন এমন ধারণাগুলিকে সিলেক্ট করুন এবং সমস্ত কিছু ভুল তথ্য কেটে দিন। আপনি যত বেশি ব্লগের প্রতি মনোনিবেশ করবেন আপনার ভিজিটর তত বাড়বে এবং অনেক বেশি আপনার কাজ থেকে উপার্জন করতে সক্ষম হবেন।

এসইও-র জন্য লেখা:

এসইও (SEO) কি এবং কিভাবে নতুন ওয়েবসাইটের জন্যে এসইও করতে হয় ?

এই পরামর্শগুলি মনে রেখে, একটি ভাল নিবন্ধন তৈরি করে ফেলুন। পরবর্তী অংশটি হচ্ছে, ক্রস পোস্টিং এবং সোশ্যাল মিডিয়া পাশাপাশি, সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন করুন। আপনার আর্টিকেল প্রচার করা বা নতুন ভিজিটরদের সামনে আপনার আর্টিকেল পৌছানোর সেরা বা প্রধান মাধ্যম হচ্ছে এসইও (SEO) । সার্চ ইঞ্জিন আপনার আর্টিকেল আরও বেশি ভিজিটরদের সামনে প্রদর্শিত হওয়ার মাধ্যমে আপনি আপনার ওয়েবসাইটের দৃশ্যমানতা এবং বিশ্বাসযোগ্যতা উভয়ই বাড়িয়ে তুলতে পারবেন।

ভাল এসইও-বান্ধব আর্টিকেল তৈরি করার কয়েকটি উপায়:

কি-ওয়ার্ড বাছাই করুন:

আপনার ওয়েবসাইট এসইও করার জন্য প্রয়োজন হচ্ছে, জনপ্রিয় এসইও কীওয়ার্ড যুক্ত করা। আপনার আর্টিকেলকে ভিজিটরদের কাছে পৌছানোর অন্যতম সেরা উপায় এটা।
প্রধান সতর্কতা এবং সঠিক কিওয়ার্ড নির্বাচন:
এই কীওয়ার্ডগুলি এমনভাবে যুক্ত করবেন যা আর্টিকেলের বিষয়বস্তুতে বারবার মানুষ সার্চ করে থাকে। কক্ষনোই উল্টাপাল্টা বা ভুলভাল কি-ওয়ার্ড ব্যবহার করা যাবেনা।কেননা সেটা ভিজিটরদের সাথে আপনার সম্পর্ক নস্ট করে দিবে। সুতরাং পাঠকের সাথে ভুলভাল কি-ওয়ার্ডের মাধ্যমে সম্পর্ক নস্ট করবেন না। পাঠকগণ, বিশেষত যারা ডিজিটাল বিশ্বে প্রচুর সময় ব্যয় করেন, তারা যদি আপনার কাজের প্রতি কেবল সামান্য নজর দেন তবে আপনি আশা করতে পারেন যে তাদের সাথে আপনার একটা সম্পর্ক তৈরি হয়ে গেছে।

কীওয়ার্ড প্লেসমেন্ট:

এসইও করা কীওয়ার্ডগুলি আপনার পোস্টের টাইটেল এবং সাবটাইটেলগুলিতে রেখে সেটি নিশ্চিত করে নিন। কীওয়ার্ডগুলির জন্য একটি চার্ট তৈরি করুন এবং সবচেয়ে বেশি সার্চকৃত কি-ওয়ার্ড গুলো ব্যবহার করে আর্টিকেল লিখুন। টাইটেলে আপনার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কীওয়ার্ড ব্যবহার করতে কক্ষনোই ভুলবেন না।

ছবি যুক্ত করুন:

আপনার ওয়েবপেজ কে ইমেজ সার্চে প্রদর্শিত করতে প্রতিটি আর্টিকেলে ছবি যুক্ত করবেন,এতে প্রচুর পরিমান ভিজিটর ইমেজ সার্চ করে আপনার ব্লগ বা ওয়েবসাইটে চলে আসবে। ইমেজ সার্চ অনেক গতিশীল ভাবে আপনার ওয়েবপেজ কে র‍্যাংক করতে সাহায্য করবে। তবে কপিরাইট ইমেজ কক্ষনোই ব্যবহার করবেন না। ইমেজের জন্য অনেক ফ্রি ওয়েবসাইট ও টুল আছে সেগুলো ইউজ করতে পারেন।

এই টিপসগুলি মাথায় রেখে, আপনি অল্প সময়ের মধ্যেই হাই এসইও র‌্যাঙ্কিংয়ের পথে যেতে পারবেন; এবং একই সময়ে, আপনি একটি ভাল মানের ওয়েবসাইট বা কন্টেন্ট প্রোভাইডার এবং নিজে ব্লগার হিসাবে আপনার খ্যাতি বাড়িয়ে তুলতে পারবেন।

সম্পূর্ণ পোস্ট নিজের চিন্তাধারা থেকে নেওয়া-ভুলক্রুটি ক্ষমা করবেন||

comment / Reply From

archive

please_select_a_date